কারা বেশি মিথ্যার অাশ্রয় নেন নারী নাকি পুরুষ?

নারীরা নাকি মনে এক আর মুখে আরেক। শুধু তাই নয়, ছলনাময়ী কিংবা মিথ্যাবাদী হিসাবেও নারীদের দুর্নাম বিস্তর। এ কথা প্রায় সকলের মাঝেই প্রচলিত যে নারীরা কারণে-অকারণে মিথ্যা বলেন।

লাইফ

কিন্তু, আসলেই কি তাই? আসলেই কি নারীরা পুরুষের তুলনায় বেশি মিথ্যা বলেন? গবেষণা কিন্তু বলছে ভিন্ন কথা। গবেষকদের মতে নারীরা নয়, বরং পুরুষেরাই মিথ্যা বলেন বেশি। আর তাই নারীর “ছলনাময়ী” খেতাবটি আসলে পুরুষেরই প্রাপ্য! সম্প্রতি ডেইলি মেইলে প্রকাশিত হয়েছে এই বিষয়ে একটি প্রতিবেদন। Continue reading

মেমোরি কার্ড থেকে মুছে গেলে ছবি ফিরিয়ে আনার জন্য

অনলাইন আয়োজনঃ কয়েকদিন আগে প্রিয় মানুষটির সঙ্গে অনেকগুলো মনের মতো ছবি ফ্রেম বন্দী করেছিলেন তার মুঠোফোনে। আজ ঘুম থেকে ওঠার পর ছবিগুলো আর খুঁজে পাচ্ছেন না। কীভাবে যেন ছবিগুলো মুছে গেছে মেমোরি কার্ড থেকে। সেঁজুতির মতো এধরনের বিড়ম্বনার শিকার অনেকেই।

মেমোরি কার্ডের

এই বিপত্তির হাত থেকে বাঁচতে একটি সহজ এবং কার্যকর পদ্ধতি গ্রহন করতে পারেন।

আপনি যদি দেখেন আপনার প্রয়োজনীয় কোন ছবি মুছে গেছে, তাহলে ওই মেমোরি কার্ড থেকে অন্য কিছু মুছে ফেলবেন না কিংবা নতুন করে কোন ফাইল রাখবেন না। Continue reading

হাতির বিষ্ঠা থেকে তৈরী হয় বিশ্বের সবচেয়ে দামি কফি

অনলাইন আয়োজনঃ আইভরি কফি, পৃথিবীর সবথেকে দামী কফি। ঠোঁটে একবার ছোঁয়ালে তার স্বাদ ভুলতে পারবেন না আমৃত্যু।

কফি

এক কাপ কফির জন্য দাম চোকাতে হবে ৪২০০ ডলার। কিন্তু এই মহার্ঘ্য কফির কিভাবে তৈরি হয় তা জানলে হয়ত কফির স্বাদ দ্বিতীয়বার নিতে চাইবেন না। কারণ এই আইভরির কফির স্বাদের পিছনে রয়েছে হাতির মলের অবদান। হাতির বিষ্ঠা থেকেই তৈরি হয় দুর্মূল্য ও বিশেষ স্বাদের এই কফি। Continue reading

ফেসবুক থেকে আনফ্রেন্ড করবেন ৭ রকমের মানুষ

অনলাইন আয়োজনঃ একবিংশ এই শতাব্দীতে ফেসবুক ব্যবহার করেন না এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া বেশ দুষ্কর কাজ হয়ে যাবে। পুরো পৃথিবীই ডিজিটাল পৃথিবী হয়ে গেছে। তাই সবারই অন্তত একটা করে ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থাকবে এটাই স্বাভাবিক। ফেসবুক মূলত এক ধরনের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম যা মানুষের মাঝে সামাজিকতা দৃঢ় করতে সহায়ক। কিন্তু আপনি আপনার ফেসবুক আইডিটি খুঁজে দেখবেন এমন কিছু ফেসবুক ফ্রেন্ড রয়েছে যারা আপনার জীবনের জন্য অপ্রয়োজনীয়। আপনি হয়তো বা নিজেই জানেন না কোন ঝোঁকের মাথায় তাকে আপনি ফ্রেন্ড বানিয়ে ফেলেছেন। তাই জেনে নিন এমন কয়েকটি ফেসবুক ফ্রেন্ড সম্পর্কে যাদের আনফ্রেন্ড করা উচিৎ এই মুহুর্তেই। কেননা এরা বিরক্তিকর, আপনার যোগ্য নয় এবং বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দারুণ ঝামেলাও তৈরি করতে পারে। নিজেকে নিরাপদ রাখতে এদের এড়িয়ে চলাই মঙ্গলজনক।

ফেসবুক আনফ্রেন্ড

একদম অপরিচিত যে কেউ :

এমন অনেক ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট হয়ত আপনি এক্সেপ্ট করেছেন যাদের আপনি একেবারেই চেনেন না বা জানেন না। কোন মিউচুয়াল ফ্রেন্ডও নেই। এমন কেউ যদি আপনার ফ্রেন্ড হয়ে থাকে তবে তাদের আনফ্রেন্ড করাটাই শ্রেয়। কেননা আপনাকে চেনেন এমন ফ্রেন্ড আপনাকে যেভাবে মূল্যায়ণ করবেন তারা সেভাবে নাও করতে পারে। অবশ্য নারী এবং পুরুষের ক্ষেত্রে বিষয়টি একেবারেই ভিন্ন। বিরক্তের বিষয়টি বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই তৈরি হয় পুরুষদের কাছ থেকে।

অযোগ্য ফ্রেন্ড :

খেয়াল করে দেখুন এমন গুটি কয়েক ফ্রেন্ডকে হয়ত আপনি এক্সেপ্ট করেছেন যাদের যোগ্যতা একেবারেই আপনার পর্যায়ে নয়। অর্থাৎ যেকোনো ধরনের যোগ্যতার দিক থেকে সে বা তারা আপনার ফ্রেন্ড সার্কেলের উপযুক্ত নয়। এমন ফ্রেন্ডদেরকে অবশ্যেই আনফ্রেন্ড করা উচিৎ। অযথা মেলামেশা বাড়াবার আগেই।

 ফেইক ফ্রেন্ড :

আজকাল ফেইক আইডির সাথে বন্ধুত্ব করেছেন এমন অনেকেই আছেন। এরা আসলে ছদ্মবেশী হয়ে থাকে। এই ধরনের অ্যাড্রেসগুলো খুঁজে বের করতে ভালোভাবে লক্ষ্য করুন এদের ফ্রেন্ড সার্কেলটি বা ফটো গ্যালারিটি। খুব কম তথ্যসম্পন্ন আইডিগুলোই সাধারণত এই ধরনের ফেইক আইডি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। এদেরকে খুঁজে বের করে আনফ্রেন্ড করুন।

ধর্ম গোঁড়া ফ্রেন্ড :

এমন অনেক আইডির সাথে হয়ত আপনার পরিচয় হবে যারা অনেকটাই ধর্ম গোঁড়া মানসিকতা ধারণ করেন। আসলে এদের ভালোভাবে চেনার উপায় নেই। তবে এরা আপনার যেকোনো স্ট্যাটাসে ধর্মকে হাতিয়ার হিসেবে নিয়ে অযথা কতগুলো কমেন্ট করতে পারেন। এমন সন্দেহপ্রবণ যেকোনো ফ্রেন্ডকে আপনি আপনার ফ্রেন্ডলিস্ট থেকে বের করে দিতে পারেন।

বন্ধুর প্রাক্তন প্রেমিক বা প্রেমিকা :

আপনার বন্ধুর প্রাক্তর প্রেমিক বা প্রেমিকাকে অবশ্যই আপনার ফেন্ডলিস্ট থেকে ডিলিট করে দেবেন। কারণ যেখানে আপনার বন্ধুটি তার সাথে আর সম্পর্ক রাখেননি সেখানে আপনার তার সাথে ফ্রেন্ডশিপ রাখা মানে আপনার বন্ধুটির ক্ষতি বা বন্ধুটির মনক্ষুণ্ন হওয়া।

আপনার প্রাক্তন প্রেমিক বা প্রেমিকা :

এই বিষয়টিও একই ধরনের অর্থাৎ আপনার বন্ধুর প্রাক্তন প্রেমিক বা প্রেমিকার সাথে বন্ধুত্ব না রাখার মত বা এর চেয়েও জটিলতর। তাই অন্তত এমন কাউকে আপনার ফ্রেন্ডলিস্টে না রাখাই শ্রেয়।

অসুস্থ মানসিকতার ফ্রেন্ড :

ফেসবুকে এমন অনেক ফ্রেন্ড রয়েছে যারা অসুস্থ মানসিকতার হয়ে থাকেন। এরা নিজের প্রোফাইলে বাজে ধরনের অ্যাকটিভিটিস করে থাকেন। এই ধরনের অসুস্থ ফ্রেন্ডদের থেকে দূরে থাকাই ভালো।

তথ্যসূত্র : www.huffingtonpost.com/ ট্রুনিউজবিডি,লাইফ:

‘সেলফি’ এবার ত্বকের সমস্যা সমাধান করবে !

অনলাইন আয়োজনঃ আপনি ত্বকের সমস্যায় ভুগছেন, কিন্তু কিছুতেই ডাক্তারের কাছে যাওয়ার সময়টুকু জোগাড় করতে পারছেন না? অথবা যাতায়াতের সমস্যা বা দূরত্বের কারণে যেতে পারছেন না। তাহলে টুক করে আক্রান্ত অঞ্চলের একটা সেলফি তুলে ফেলুন। সেই সেলফি পাঠিয়ে দিন আপনার চর্ম বিশেষজ্ঞের কাছে।

অনলাইন আয়োজন

নতুন এক গবেষণা অনুযায়ী, সেলফি একজিমার মত ত্বকের সমস্যাকে চিহ্নিত করে তার নিরাময়ে সাহায্য করে।

কোলোরাডো বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক এপ্রিল আর্মস্ট্রংয়ের নেতৃত্বাধীন এক গবেষণায় প্রকাশ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একজিমা আক্রান্ত ৭৮ জন সেলফির মাধ্যমে ডাক্তারদের কাছ থেকে অনলাইন চিকিৎসা পেয়েছেন। অন্য ৭৮জন একজিমা আক্রান্ত সরাসরি ডাক্তারদের কাছে গিয়ে চিকিৎসা নিয়েছেন।

রোগীরা নিজেদের ত্বকের সমস্যার ছবি তুলে অনলাইনে ডার্মাটোলজিস্টদের কাছে পাঠিয়েছিলেন। ডাক্তাররা সেই ছবির ভিত্তিতে রোগ নিরাময়ের জন্য প্রয়োজনীয় কী কী ওষুধ লাগবে ওনলাইনেই তার হদিস দিয়ে দিয়েছেন। এক বছর পর দেখা গেছে সরাসরি ডাক্তারদের কাছে গিয়ে যারা চিকিৎসা নিয়েছিলেন তাদের ৪৪% ক্ষেত্রে একজিমা সম্পূর্ণ বা প্রায় সেরে গেছে। অন্যদিকে, অনলাইনে চিকিৎসা যারা নিয়েছিলেন তাদের ক্ষেত্রে এই নিরাময়ের হার ৩৮%। তথ্যঃ ট্রুনিউজবিডি

প্রিয় মানুষটির ব্যাপারে ৮টি কথা জেনে রাখা জরুরী

অনলাইন আয়োজনঃ একটু ভাবুন, নিজের মনের মানুষটির ব্যাপারে আপনি সবকিছু জানেন তো? সত্যি কথা কিন্তু এটাই যে যতই প্রেম-ভালোবাসা থাকুক না কেন একজন মানুষ সম্পর্কে সবকিছু জেনে ফেলা যায় না। আর যায়না বলেই বিয়ের পর দেখা দিতে থাকে নানান রকম সমস্যা কিংবা মানুষ হয় প্রতারিত। আর এই ঝুঁকি কমিয়ে আনতে কিছু জিনিস জেনে রাখা অত্যন্ত প্রয়োজনীয়।

১) তার কিংবা তার পরিবারের উপার্জনের উৎসগুলো কী কী?

তিনি আপনার মনের মানুষ বলেই কোন অপরাধ মূলক বা অনৈতিক কাজের সাথে যুক্ত নন, এটা ভাবাটা বোকামি। কেবল তিনিই নয়, তার মা-বাবা-ভাই-বোন তথা সম্পূর্ণ পরিবারের পেশা সম্পর্কেই বিস্তারিত জেনে নেয়া খুবই জরুরী।

২) পরিবারে কোন মানসিক রোগী আছে কি?

মানসিক রোগ, উন্মাদনা ইত্যাদি ব্যাপারগুলো অনেক কারণেই হতে পারে। তবে পরিবারে কেউ মানসিক রোগী থাকলে অন্য কারো মাঝেই জেনেটিকভাবে এই রোগ হবার প্রবণতা দেখা যায়। হয়তো আপনার মনের মানুষের নেই, কিন্তু আপনার ভবিষ্যৎ সন্তানদের হতে পারে। তাই জেনে রাখাটা জরুরী।

৩) খোঁজ খবর নেয়া উচিত তাঁদের স্থায়ী ঠিকানা ও পরিচিত জনেরা কী বলেন তাঁদের ব্যাপারেঃ

স্থায়ী নিবাস আসলেই আছে কিনা কিংবা সেখানে আত্মীয় বা পাড়া প্রতিবেশীরা তাঁদের সম্পর্কে কী বলেন, এই ব্যাপারটি হাস্যকর মনে হলেও ফেলনা নয়। কারণ সেটা জানলে বুঝতে পারবেন পরিবার হিসাবে তাঁরা কেমন, এবং সমাজের অন্যদের কাছে তাঁদের অবস্থান কী।

৪) রোগ বালাইয়ের ইতিহাস –

কেবল মনের মানুষ নয়, তার পরিবারের অন্যান্য রোগ বালাইয়ের ব্যাপারেও জেনে রাখা উচিত আপনার। অনেক অসুখই আছে যেগুলো জেনেটিক এবং আজকাল এসব জেনেটিক ডিসঅর্ডার খুব বেশি হতে দেখা যায়। একই সাথে মনের মানুষটির রোগ বালাইয়ের ব্যাপারে জেনে রাখা আপনার স্বাস্থ্যের জন্যও জরুরী।

৫) আজ থেকে ১০ বছর পর নিজেকে তিনি কোথায় দেখতে চান-

যে মানুষটির সাথে জীবন কাটাতে চান, তার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা জেনে রাখাটা কি জরুরী নয়? নাহলে বুঝবেন কীভাবে যে একসাথে জীবন কেমন হবে।

৬) আপনার জন্য তিনি কী কী করতে আগ্রহী?

ভালোবাসা আছে ভালো কথা। কিন্তু আপনার জন্য তিনি কী কী করতে পারবেন, কতদূর যেতে পারবেন? কিছু ছোট ছোট পরীক্ষায় বিষয়টি জেনে নেয়ার চেষ্টা করুন।

৭) তার পরিবার সম্পর্কে বিস্তারিত-

তার পরিবারের মানুষগুলো কেমন, এটা জেনে নেয়া খুবই জরুরী। কেননা সেই মানুষগুলো একসময় আপনারও আপনজন হবেন।

৮) একজন অসুস্থ, অক্ষম স্বামী/স্ত্রী সম্পর্কে তিনি কী ভাবেন-

জীবনের কথা কেউ বলতে পারে না। একটা বড় ধরণের অসুখে আপনি অসুস্থ বা অক্ষম হয়ে যেতেই পারেন। তখন মনের মানুষটির কী রি অ্যাকশন হবে? অনেকেই আছেন যারা স্বামী বা স্ত্রী অসুস্থ হয়ে পড়লে তাঁকে ত্যাগ করেন বা অবহেলা করেন। বিশেষ করে পুরুষেরা। আপনার মনের মানুষটি এই ব্যাপারে কী ভাবেন, সেটাও জেনে রাখতে হবে বৈকি।

সূত্র- এলিট ডেইলি/ট্রুনিউজবিডি,লাইফ।

মুচমুচে ‘আলুর চিপস’ঘরেই তৈরি করুন

অনলাইন আয়োজনঃ শীতের বিকেলে ধোঁয়া ওঠা এক কাপ চা বা কফির সাথে মুচমুচে কিছু স্ন্যাকস খাওয়ার ইচ্ছা জাগে সকলের মনেই। বিশেষ করে আড্ডায় তো ভাজাভাজি ধরণের স্ন্যাকস ছাড়া জমেই উঠে না। কেমন হয়, যদি এই সময় পাওয়া যায় মুচমুচে আলুর চিপস? না, প্যাকেটজাত আলুর চিপসের কথা বলছি না। তবে ঘরে খুব সহজেই তৈরি করে নেয়া যায় মুচমুচে আলুর চিপস। ঘরে তৈরি চিপসগুলো খেতে সুস্বাদু হয় এবং সেই সাথে কেমিক্যাল মুক্তও থাকে। Continue reading