মুচমুচে ‘আলুর চিপস’ঘরেই তৈরি করুন

অনলাইন আয়োজনঃ শীতের বিকেলে ধোঁয়া ওঠা এক কাপ চা বা কফির সাথে মুচমুচে কিছু স্ন্যাকস খাওয়ার ইচ্ছা জাগে সকলের মনেই। বিশেষ করে আড্ডায় তো ভাজাভাজি ধরণের স্ন্যাকস ছাড়া জমেই উঠে না। কেমন হয়, যদি এই সময় পাওয়া যায় মুচমুচে আলুর চিপস? না, প্যাকেটজাত আলুর চিপসের কথা বলছি না। তবে ঘরে খুব সহজেই তৈরি করে নেয়া যায় মুচমুচে আলুর চিপস। ঘরে তৈরি চিপসগুলো খেতে সুস্বাদু হয় এবং সেই সাথে কেমিক্যাল মুক্তও থাকে। Continue reading

জেনে নেওয়া যাক গাজরের কিছু পুষ্টিগুণ

গাজর একটি মূলজ সবজি, বৈজ্ঞানিক নাম ডকাশ ক্যারোটা। গাজর যেমন পুষ্টিকর, তেমনি শরীরের জন্য দারুণ উপকারী। আমরা কাঁচা, রান্না করে বা হালুয়ায় গাজর খেয়ে থাকি। গাজর এ প্রধানত ভিটামিন এ পাওয়া যায়। তাছাড়া এতে ক্যালসিয়াম, লৌহ, ফসফরাস, শ্বেতসার এবং অন্যান্য ভিটামিন প্রচুর পরিমাণে রয়েছে। গাজর ক্যান্সারের ঝুঁকি কমানোসহ দেহের নানান সমস্যার সমাধান করে থাকে। তাই দিনে অন্তত দুটি গাজর খাওয়া শরীরের জন্য খুবই উপকারী। চলুন জেনে নেওয়া যাক গাজরের কিছু পুষ্টিগুণ।

Gazor-01

ছবি সংগৃহীত

গাজর খেলে অনেক রোগ থেকে রক্ষা পাওয়া যায়ঃ

১. ক্যান্সার প্রতিরোধ করে : বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে, গাজরে উপস্থিত ফ্যালকেরিনল এবং ফ্যালকেরিনডায়ল উপাদান আমাদের শরীরে অ্যান্টিক্যান্সার উপাদানগুলোকে পূর্ণ করে। নিয়মিত গাজর খেলে ব্রেস্ট ক্যান্সার, কোলোন ক্যান্সার ও ফুসফুসের ক্যান্সারের ঝুঁকি কমে। এছাড়া গাজর চামড়ার ক্যান্সারও প্রতিরোধ করে। প্রতিদিন মধ্যম আকৃতির গাজর খেলে ফুসফুসে ক্যান্সারের ঝুঁকি ৫০ শতাংশ হ্রাস পায়। গবেষকদের মতে, যারা নিয়মিত গাজর খান তাদের প্রায় ৭০% মানুষ চামড়ার ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার হাত থেকে বেঁচে যান। Continue reading

বিকেলের নাস্তায় তৈরি করুন ভেজিটেবল ললিপপ

বিকেলের নাস্তায় আমরা সবাই বাসায় কিছু না কিছু তৈরি করি। কিন্তু সব খাবার স্বাস্থ্যকর হয় না। তাই বিকেলে নাস্তায় তৈরি করতে পারেন ভেজিটেবল ললিপপ। এই খাবারটি যেমন স্বাস্থ্যকর, তেমনি সুস্বাদু। ভেজিটেবল ললিপপ এর রেসিপিটি তৈরি করেছেন রন্ধনশিল্পী নাদিয়া নাতাশা।

Loli-pop

উপকরন: Continue reading

বার-বি-কিউ চিকেন উইংস তৈরি করুন সহজে

 bbq1
বিভিন্ন রেস্তরাঁয় সবসময়েই ভীষণ জনপ্রিয় একটি আইটেম হলো চিকেন উইংস। উইংসের বিভিন্ন ধরণের মাঝে আবার বারবিকিউ উইংসটাই বেশি মুখরোচক। বারবিকিউ সসে মাখা মুচমুচে এই উইংস আপনি কিন্তু নিজেও তৈরি করে নিতে পারেন বাড়িতেই। এতে খুব বেশি সময় লাগবে না। উপকরণও লাগবে কম। চলুন দেখে নেই প্রণালীটি।
উপকরণ-

Continue reading

মৌসুমি স্বাদে কাঁচা কাঁঠালের পোলাও তৈরী করুন

এই গরমে প্রোটিনের পাশাপাশি যথেষ্ট পরিমাণে সবজি খাওয়াটা স্বাস্থ্যের জন্য খুবই জরুরী। একই সাথে স্বাস্থ্যকর, মুখরোচক আবার মৌসুমের উপযোগী খাবার খেতে চাইলে এই রেসিপিটি আপনার জন্যই। কিছুদিনের মাঝেই কাঁচা কাঁঠাল পাবেন কাঁচাবাজারগুলোতে। আর অসাধারণ এই সবজিটির স্বাদ নিতে পারেন এই কাঁচা কাঠালের পোলাওতে। চলুন, দেখে নেই সহজ রেসিপিটি।
 kathal
উপকরণ

Continue reading

স্ট্রবেরি জ্যাম ঘরে তৈরী করুন মাত্র ৩টি উপাদান দিয়ে

আজকাল বাজারে একটি ফল খুব দেখা যায়, তা হল স্ট্রবেরি। মজাদার এই ফলটি দিয়ে নানা রকম খাবার তৈরি করা যায়। আইসক্রিম থেকে শুরু করে কেক পর্যন্ত সব রকম খাবার তৈরি করা

824653_0

যায় এই ফলটি দিয়ে। সকালের নাস্তায় রুটির সাথে জ্যাম খুব পরিচিত। Continue reading

মাসালা ম্যাকারনি নাশতা ঝটপট ১৫ মিনিটে

নুডলস বা ম্যাকারনি দিয়ে পাস্তা রান্না করে খাওয়া হয় হরহামেশাই। কিন্তু এই ম্যাকারনি রান্নায় কখনো গরম মশলা ব্যবহার করেছেন কি? অনেকেই হয়তো ভাবছেন মাংস রান্নার এই উপাদান ম্যাকারনিতে মটেই মানাবে না। চলুন, দেখে নেই এমন একটি ম্যাকারনি রেসিপি যাতে মানিয়ে যাবে গরম মশলার ঝাঁঝালো স্বাদ। সকাল কিংবা দুপুর, যে কোনো সময়ে পেট ভরাতে এই খাবারটি দারুণ।
macaroni
উপকরণ

Continue reading

ভিন্ন স্বাদের ডালের রান্না

নিত্যদিনের খাবারগুলোর মধ্যে ডাল অন্যতম। অনেকেই ডাল ছাড়া খাবার খেতেই পারেন না। সাধারণত মসুরির ডালটা বেশি রান্না  করা হয়। অনেকে মুগ ডাল রান্না করে থাকেন মসুরি ডালের পরিবর্তে। অড়হর ডাল ঝামেলার কারণে অনেকেই রান্না করতে চান না। অথচ এই ডাল খেতে কিন্তু দারুণ। ভারতে গুজরাটে এই অড়হর ডাল দিয়ে একটি রান্না করা হয় “তোভার ডাল”। ভাত, রুটি সবকিছুর সাথে খেতে দারুন লাগে এই খাবারটি।

maxresdefault (2)_1

উপকরণ:

১/২ কাপ অড়হর ডাল

১/২ চা চামচ হলুদ গুঁড়ো

২ টি কাঁচা মরিচ

১/৪ চা চামচ আদা কুচি

১/৪ কাপ টমেটো কুচি

১/৪ কাপ গুঁড়

লবণ স্বাদমত

১ টেবিল চামচ তেল

১ চা চামচ সরিষা

১/২ চা চামচ জিরা

২টি লবঙ্গ

১ টি ছোট দারুচিনি

৪-৫টি কারি পাতা

১/৪ চা চামচ হিং

১/২ চা চামচ মরিচ গুঁড়ো

২ চা চামচ লেবুর রস

২ টেবিল চামচ ধনেপাতা কুচি

 

প্রণালী:

১। অড়হরের ডাল ১.৫ কাপ পানি দিয়ে প্রেশার কুকারে দিয়ে দিন। ৩টি শিষ দেওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। সিদ্ধ হয়ে এলে প্রেশার কুকারের ঢাকনা খুলে ফেলুন।

২। রান্না করা ডালের সাথে ১ কাপ পানি দিয়ে ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে নিন।

৩। এবার একটি প্যানে ব্লেন্ড করা ডাল, হলুদ গুঁড়ো, কাঁচা মরিচ, আদা, টমেটো, গুঁড়, ১.৫ কাপ পানি এবং লবণ দিয়ে দিন। মাঝারি আঁচে ১০ মিনিট রান্না করুন।

৪। ডাল মাঝে মাঝে নাড়ুন।

৫। এখন আরেকটি প্যানে তেল গরম হয় এলে সরিষা, জিরা দিয়ে দিন। জিরা ফুটে আসলে এতে লবঙ্গ, দারুচিনি, কারি পাতা দিয়ে মাঝারি আঁচে কয়েক সেকেন্ড ভাঁজুন।

৬। এটি ফুটন্ত ডালে এটি দিয়ে দিন। এর সাথে হিং, মরিচ গুঁড়ো ভাল করে মিশিয়ে মাঝারি আঁচে ৪ থেকে ৫ মিনিট রান্না করুন।

৭। সবশেষে লেবুর রস এবং ধনে পাতা কুচি দিয়ে ১-২ মিনিট নেড়ে নামিয়ে ফেলুন।

৮। ভাত অথবা রুটির সাথে পরিবেশন করুন মজাদার তভার ডাল।

(প্রিয়.কম)

ইউটিউব চ্যানেল: Tarla Dalal

ঘরে বসে তৈরি করে ফেলুন পারফেক্ট দই

পোলাও, বিরিয়ানি খাওয়ার পর দই হলে বেশ ভাল হয়। শুধু তাই নয় নানা রকম রান্না, সালাদে দই ব্যবহার করা হয়। যারা ডায়েট করছেন তাদের নিয়মিত খাদ্য তালিকায় টক দই দেখতে পাওয়া যায়। টক দই খাবার হজম করতে সাহায্য করে এর সাথে শরীরে বাড়তি মেদ কমিয়ে দেয়। অনেকে দই ঘরে তৈরি করে থাকেন। তবে  তা ঠিক বাজারের দইয়ের মত হয় না। আসুন তাহলে বাজারের মত দই তৈরির রেসিপিটি জেনে নেওয়া যাক।

maxresdefault_19 (1)

উপকরণ:

  • ১/২ লিটার দুধ
  • ১ টেবিল চামচ টকদই

প্রণালী:

১। একটি পাত্রে মাঝারি আঁচে ১ থেকে ২ মিনিট দুধ জ্বাল হতে দিন। দুধ কুসুম গরম হয়ে আসলে এটি কিছুক্ষণ নাড়ুন। লক্ষ্য রাখবেন দুধ যেন খুব বেশি গরম না হয়ে যায়।

২। তারপর নামিয়ে ফেলুন।

৩। এখন যে বটিতে দই জমাবেন সেই বাটিতে এক টেবিল চামচ টকদই দিয়ে ছড়িয়ে দিন।

৪। এবার কুসুম কুসুম গরম দুধ বাটিতে ঢেলে দিন। কিছুক্ষণ নাড়ুন।

৫। এখন এটি ঢাকনা দিয়ে রেখে দিন।

৬। ৪ ঘন্টা অপেক্ষা করুন। ৪ ঘন্টার পর পেয়ে যান টক দই। পানিছাড়া একদম ঘন টকদই!

টিপস:

১। আপনি যদি লো ফ্যাট দুধ দিয়ে টকদই তৈরি করতে চান, তবে টকদইয়ে কিছুটা পানি উঠবে।

২। খুব দ্রুত টকদই জমাতে চাইলে ১.৫ টেবিল চামচ পর্যন্ত টক দই দিতে পারেন। এর বেশি টকদই ব্যবহার করলে দইটি বেশি টক হয়ে যাবে।

৩। মিষ্টি দই তৈরি করতে চাইলে ঠান্ডা দুধের সাথে চিনি মিশিয়ে নিবেন।

(সূত্রঃ  প্রিয়.কম)

অতিথির ঝটপট নাস্তা শানা পাকাড়ো

হঠাৎ করে মেহমান চলে এল, ঘরে তেমন কোন খাবার নেই। তখন কি করবেন? বাইরে যাবেন, নাস্তা কিনবেন, তারপর আপ্যায়ন করবেন? তারচেয়ে সহজ কোন কিছু ঘরে তৈরি করে ফেলুন। স্বল্প সময়ে অল্প কিছু উপাদান দিয়ে সহজে তৈরি করে নিতে পারেন শানা পাকোড়া! আসুন তাহলে জেনে নেওয়া মুড়মুড়ে শানা পাকাড়োর রেসিপিটি।

spit1_0.jpg

উপকরণ:

  • ৪টি পেঁয়াজ কুচি
  • ধনেপাতা কুচি
  • ২টি কাঁচা মরিচ কুচি
  • লবন স্বাদমত
  • ১/২ চা চামচ জিরা
  • ১/২ চা চামচ ধনিয়া
  • ১ চা চামচ লাল মরিচ গুঁড়ো
  • ১ চা চামচ লাল শুকনো মরিচ
  • ১/৪ চা চামচ বেকিং সোডা
  • ১.৫ কাপ বেসন
  • পানি
  • তেল ভাজার জন্য

প্রণালী:

১। একটি পাত্রে পেঁয়াজ কুচি, ধনিয়া, কাঁচা মরিচ কুচি, লবণ, জিরা, মরিচ গুঁড়ো, লাল শুকনো মরিচ দিয়ে ভাল করে মিশিয়ে নিন।

২। তারপর এতে ময়দা অথবা বেসন এবং পানি দিয়ে ভাল করে মেশান। মিশ্রণটি যেন ঘন হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখবেন।

৩। প্যানে তেল গরম করতে দিন।

৪। তেল গরম হয়ে আসলে চামচ দিয়ে পাকোড়ার মিশ্রণটি ছোট ছোট বল করে দিয়ে দিন।

৫। বলগুলো বাদামী রং হয়ে আসলে নামিয়ে ফেলুন।

৬। ব্যস তৈরি হয়ে গেল মচমচে শানা পাকাড়ো। সস বা চাটনি দিয়ে পরিবেশন করুন মজাদার এই খাবারটি।

(সূত্রঃ প্রিয়.কম)